Uncertain Rohingya Repatriation in Rakhine State

155

মায়ানমারের রাখাইন রাজ্যে অশান্ত পরিস্থিতি বিরাজ করছে। মায়ানমারজুড়ে চলমান সংঘাতের পরিপ্রেক্ষিতে দেশটির অন্যান্য প্রতিবেশীর মতো বাংলাদেশও নানাভাবে ক্ষতিগ্রস্ত হচ্ছে। রাখাইন রাজ্যে আরাকান আর্মি (এএ) ও মায়ানমারের সীমান্তরক্ষী বাহিনীর (বিজিপি) মধ্যকার আক্রমণ ও পাল্টা আক্রমণের পর বাংলাদেশ-মায়ানমার সীমান্তের কিছু কিছু চৌকি এএ নিয়ন্ত্রণ করছে এবং সেখান থেকে বিজিপির সদস্যরা বাংলাদেশে পালিয়ে আসছে। বাংলাদেশ আন্তর্জাতিক নিয়মকানুন অনুসারে তাদের মায়ানমারে ফেরার ব্যবস্থা করছে। ১১ মার্চ সীমান্ত পথে বিজিপির ১৭৯ সদস্য বাংলাদেশে আশ্রয় নিয়েছে, এর আগে আশ্রয় নেওয়া ৩৩০ জনকে মায়ানমারে ফেরত পাঠানো হয়।

আপাতদৃষ্টিতে এসব এলাকা এএ-এর নিয়ন্ত্রণে থাকলেও মায়ানমার সেনাবাহিনী সহজে সীমান্ত নিরাপত্তা হাতছাড়া করবে না। ফলে সামনের দিনগুলোতে এসব এলাকায় সেনাবাহিনী পাল্টা আক্রমণ চালাবে। এর ফলে সংকট দীর্ঘায়িত হবে এবং এর প্রভাব পড়বে বাংলাদেশে। বাংলাদেশের সীমান্ত এলাকায় গোলাগুলির কারণে সেখানে হতাহতের ঘটনা ঘটছে এবং সীমান্ত এলাকার মানুষ নিরাপত্তাহীনতায় রয়েছে। বাংলাদেশ মায়ানমারের চলমান সংকট নিবিড়ভাবে পর্যবেক্ষণ করার পাশাপাশি কূটনৈতিকভাবে পরিস্থিতি মোকাবিলা করছে। মায়ানমারের এ সংকটের কারণে রোহিঙ্গা সমস্যার সমাধান আরও দীর্ঘস্থায়ী হতে চলেছে এবং এর পাশাপাশি বাংলাদেশ সীমান্ত নিরাপত্তাসহ নানা ধরনের সমস্যার সম্মুখীন হচ্ছে।

বর্তমানে মায়ানমারে সেনাবাহিনীর সঙ্গে যুদ্ধরত পক্ষগুলো সবাই আঞ্চলিক স্বায়ত্তশাসন ও ফেডারেল কাঠামোর অধীনে ঐক্যবদ্ধ মায়ানমার রাষ্ট্রের পক্ষে। তারা নিজেদের মধ্যকার মতভেদ মিটিয়ে একটি ফেডারেল রাষ্ট্র প্রতিষ্ঠায় সক্ষম হলে কিংবা অন্য যেকোনো পরিস্থিতিতে রোহিঙ্গা প্রত্যাবাসন বিষয়টি যাতে গুরুত্ব পায় সেদিকে নজর রাখতে হবে। বহিঃশক্তির প্রভাবের কারণে মায়ানমারের পরিস্থিতি অস্থিতিশীল থাকলে রোহিঙ্গা প্রত্যাবাসন নিয়ে বাংলাদেশকেও অস্বস্তিকর পরিস্থিতির মধ্যে থাকতে হবে।

মায়ানমারের সীমান্তসংলগ্ন এলাকাগুলোতে এই প্রথমবারের মতো জাতিগত সশস্ত্র গোষ্ঠীগুলো (ইএও) তাদের আত্মনিয়ন্ত্রণের অধিকার নিশ্চিত করতে একটা যুক্তরাষ্ট্রীয় কাঠামোর গণতন্ত্র প্রতিষ্ঠার উদ্দেশ্যে একত্র হয়ে সামরিক সরকারের বিরুদ্ধে সর্বাত্মক আক্রমণ চালাচ্ছে। সামরিক জান্তাবিরোধী সংগঠনগুলো একত্র হওয়ায় মায়ানমারের ইতিহাসে বর্তমান সংঘাত অভূতপূর্ব তীব্রতা লাভ করেছে। এই সংঘর্ষের ধাক্কা আমাদের সীমান্তেও আসছে এবং সে কারণে বাংলাদেশকে নানাবিধ সংকট মোকাবিলায় প্রস্তুত থাকতে হচ্ছে। তাই রাখাইনের শান্তি ও স্থিতিশীলতা বাংলাদেশের জন্য অত্যন্ত গুরুত্বপূর্ণ। মায়ানমার পরিস্থিতিতে বাংলাদেশের প্রথম ও প্রধান করণীয় হলো দ্রুত রোহিঙ্গাদের মায়ানমারে প্রত্যাবাসন নিশ্চিত করা। এ জন্য রাখাইনে স্থিতিশীল পরিস্থিতি প্রয়োজন।

এএ রাখাইনের প্রধান রাজনৈতিক শক্তি। দীর্ঘ সময় ধরে এএ রাখাইনে তাদের আধিপত্য প্রতিষ্ঠা ও তা সংহত করতে কাজ করে যাচ্ছে। রোহিঙ্গাদের মায়ানমারের রাখাইন প্রদেশে তাদের নিজভূমে ফিরে যেতে হবে। তা নিশ্চিত করতে যেকোনো পরিস্থিতিতে রোহিঙ্গা সংকটের সমাধানে মায়ানমার সরকারের পাশাপাশি মায়ানমার সেনাবাহিনী এবং এএ আর্মিকে বিবেচনায় রাখতে হবে। চীন ও ভারতের মতো আরাকান আর্মির সঙ্গে যেকোনো উপায়ে বাংলাদেশের যোগাযোগ থাকা উচিত।

বিদেশে অবস্থানরত রোহিঙ্গা নেতারা, মায়ানমারের বাইরে থাকা রাখাইনের বুদ্ধিজীবী ও রাখাইনের প্রধান রাজনৈতিক দল ইউনাইটেড লিগ অব আরাকানের (ইউএলএ) নেতাদের সঙ্গে যোগাযোগ স্থাপন করে সম্পর্ক উন্নয়ন-প্রক্রিয়া চলমান রাখতে হবে। গত সাত বছরে এ বিষয়ে তেমন কোনো অগ্রগতির তথ্য জানা যায়নি। রোহিঙ্গাদের রাখাইনেই ফিরে যেতে হবে এবং সেখানে রাখাইন জনগোষ্ঠীর সঙ্গেই তাদের শান্তিপূর্ণ সহাবস্থান করতে হবে। এর কোনো বিকল্প নেই এবং রোহিঙ্গা সংকট সমাধানে নিয়োজিত সব পক্ষকে এএ-এর সঙ্গে সুসম্পর্ক প্রতিষ্ঠা করতে সহায়তার বিষয়ে কাজ করতে হবে। রোহিঙ্গাদের মায়ানমারে প্রত্যাবাসন ও রাখাইনদের সঙ্গে শান্তিপূর্ণ সহাবস্থান নিশ্চিত করতে এ ধরনের উদ্যোগ গুরুত্বপূর্ণ।

চলমান পরিস্থিতিতে বিদ্রোহীদের ঐক্যজোট ব্রাদার হুড অ্যালায়েন্স সরকারের পতন ঘটাতে পারলে মায়ানমারে গণতন্ত্র প্রতিষ্ঠিত হবে আশা করা যায়। গণতন্ত্র পুনঃপ্রতিষ্ঠা করা গেলে জাতীয় ঐক্যের সরকার (এনইউজি) বাংলাদেশে আশ্রয় নেওয়া রোহিঙ্গাদের পূর্ণ নাগরিকত্ব এবং অন্যান্য অধিকার ও সুবিধা দিয়ে মায়ানমারে ফিরিয়ে নেবে বলে জানায়। রোহিঙ্গাদের প্রতিনিধিত্বকারী নেতারা এবং রোহিঙ্গা সমস্যা সমাধানে নিয়োজিত সব পক্ষকে এএ এবং এনইউজির সঙ্গে যোগাযোগ স্থাপন ও তা নিরবচ্ছিন্ন রাখতে হবে।

মায়ানমারের বিশেষত আরাকানের প্রতিনিধিত্বকারী রাজনৈতিক দলগুলোর সঙ্গে রোহিঙ্গাদের জন্য সেখানে উপযুক্ত পরিবেশ সৃষ্টির কার্যক্রম চালিয়ে যেতে হবে। চলমান পরিস্থিতিতে বাংলাদেশকে দুটি বিষয়ে নজর রাখতে হবে। প্রথমত, মায়ানমারের অস্থিতিশীল অভ্যন্তরীণ যুদ্ধ পরিস্থিতি ও বাংলাদেশ সীমান্তে এর প্রভাব নিয়ন্ত্রণ। একই সঙ্গে রোহিঙ্গা ক্যাম্পের সন্ত্রাসী কার্যক্রম ও অস্থিতিশীলতা এবং দীর্ঘ মেয়াদে এই সংকট মোকাবিলায় প্রস্তুতি নেওয়া।

এএ এবং মায়ানমার সেনাবাহিনীর মধ্যে সংঘর্ষের কারণে মায়ানমার থেকে মর্টার শেল ও গুলি বাংলাদেশের ভেতরে পড়ছে। এর ফলে বাংলাদেশের অভ্যন্তরের মানুষ আতঙ্কে রয়েছে। সামনের দিনগুলোতে মায়ানমার সেনাবাহিনী এসব চৌকি দখলের উদ্যোগ নিলে পুনরায় সংঘর্ষের সূচনা হতে পারে এবং সীমান্ত এলাকার শান্তি ও নিরাপত্তা বিঘ্নিত হওয়ার সম্ভাবনা রয়েছে। মায়ানমারের সীমান্তরক্ষীরা পালিয়ে বাংলাদেশে আশ্রয় নিচ্ছে, তাদের ব্যবহার করা অস্ত্র ও গোলাবারুদ এএ দখল করে নিচ্ছে। এসব অস্ত্রের সঠিক সংখ্যা ও কোথায় যাচ্ছে তা জানা সব সময় সম্ভব নয়।

বাংলাদেশের ক্যাম্পগুলোতেও অবৈধ পথে এই অস্ত্র আসতে পারে, এর ফলে ক্যাম্পের নিরাপত্তা পরিস্থিতির অবনতি ঘটবে। পার্বত্য চট্টগ্রাম অঞ্চলে এই অস্ত্র সন্ত্রাসীদের হাতে এলে পুরো পার্বত্য এলাকায় আবার অশান্তি ও সংঘাত ছড়িয়ে পড়তে পারে। মায়ানমারের অভ্যন্তরীণ সংকটের কারণে বাংলাদেশের সীমান্তবর্তী এলাকাগুলোর মানুষ সংকটে রয়েছে। এ সংকট সমাধানে বাংলাদেশকে সীমান্ত নিরাপত্তা জোরদার করতে হবে এবং কূটনৈতিক প্রক্রিয়ায় মায়ানমার সরকারের সঙ্গে যোগাযোগপূর্বক পরিস্থিতি নিয়ন্ত্রণে রাখতে হবে।

এএ এবং রাখাইনের জনগণের সঙ্গে অনানুষ্ঠানিক সম্পর্ক ও যোগাযোগ প্রতিষ্ঠা করতে হবে। বাংলাদেশকে মায়ানমার সীমান্তসংলগ্ন এলাকা সম্পর্কে ধারণা বাড়ানোর কার্যক্রম চলমান রাখতে হবে।

বার্মিজ ভাষায় দক্ষ জনবল তৈরি করে তাদের মায়ানমারের অভ্যন্তরীণ পরিস্থিতি পর্যবেক্ষণে এবং সীমান্তের কাছাকাছি এলাকার জনগণ ও অন্যান্য বিষয়ে তথ্য সংগ্রহ জোরদার করতে হবে। বর্তমান পরিস্থিতিতে সীমান্ত নজরদারি কিছুটা শিথিল থাকায় এ সুযোগ কাজে লাগাতে হবে। বাংলাদেশ মায়ানমার সীমান্তে এখন এএ অবস্থান নিয়েছে। বাংলাদেশ আনুষ্ঠানিকভাবে আরাকান আর্মি বা এনইউজির সঙ্গে সম্পর্ক স্থাপন বা যোগাযোগ করতে পারে না, তবে বিভিন্নভাবে অনানুষ্ঠানিক যোগাযোগ স্থাপন করা যায়। এ জন্য একটা মজবুত প্ল্যাটফর্ম গঠন করতে হবে, যাতে বিভিন্ন পর্যায়ের প্রতিনিধিত্ব যেমন- রাজনৈতিক ব্যক্তিত্ব, প্রশাসন, নিরাপত্তা, মিডিয়া, বুদ্ধিজীবী, গবেষক, সুশীল সমাজ ও অন্যান্য প্রয়োজনীয় প্রতিনিধিত্ব থাকবে। তারা এই সংকট উত্তরণে আন্তর্জাতিক, আঞ্চলিক এবং অন্যান্য স্বার্থসংশ্লিষ্ট ব্যক্তি ও সংস্থার সঙ্গে যোগাযোগপূর্বক সমস্যা সমাধানে অগ্রগতি ও কার্যক্রম সম্পর্কে সরকারকে অবহিত করবে।

রোহিঙ্গাদের জন্য আন্তর্জাতিক মানবিক সহায়তা তহবিল কমছে। রোহিঙ্গা সংকট চলমান প্রেক্ষাপটে আন্তর্জাতিক মনোযোগের আড়ালে চলে গেছে, বাংলাদেশের নিজস্ব স্বার্থে এই সংকট যেন গুরুত্ব না হারায় সে জন্য চেষ্টা চালিয়ে যেতে হবে। বিশ্বের নানা প্রান্তে সমস্যা মোকাবিলায় তহবিলসংকট থাকায় বরাদ্দ কমে আসছে। ২০২৪ সালের জেআরপিতে ৮৫ কোটি ২৪ লাখ ডলার চাওয়া হয়েছে। ২০২৩ সালে রোহিঙ্গাদের জন্য ৮৭ কোটি মার্কিন ডলার চাহিদার বিপরীতে ৫০ শতাংশ বরাদ্দ পাওয়া গিয়েছিল।

সহায়তা তহবিল কমে আসায় রোহিঙ্গা ও স্থানীয় জনগণের মধ্যে সংহতি ক্ষতিগ্রস্ত হচ্ছে এবং এর ফলে সেখানকার আইনশৃঙ্খলা পরিস্থিতির অবনতি ঘটাতে পারে। খাদ্যসহায়তা কমে গেলে রোহিঙ্গারা আরও মরিয়া হয়ে উঠবে, যা ক্যাম্পগুলোতে সহিংসতা ও অস্থিরতা বাড়াবে বলে মনে করে জাতিসংঘ। এ জন্য রোহিঙ্গা ক্যাম্পগুলোর অভ্যন্তরীণ পরিস্থিতি নিয়ন্ত্রণে রাখতে হবে। বাংলাদেশকে ত্রাণ-সহায়তা চলমান রাখতে মধ্য ও দীর্ঘমেয়াদি পরিকল্পনা প্রণয়ন করতে হবে। একই সঙ্গে সংকট সমাধানের একটা রোডম্যাপ প্রস্তুত করার পাশাপাশি যেকোনো জরুরি পরিস্থিতি মোকাবিলায় সম্ভাব্য প্রস্তুতি নিয়ে রাখতে হবে।

মায়ানমারের সংঘাত নিরসনে আঞ্চলিক দেশগুলোর সঙ্গে একত্রে শান্তি আলোচনায় যোগ দিয়ে প্রতিবেশী দেশ হিসেবে বাংলাদেশকে নিজের স্বার্থ রক্ষায় এগিয়ে আসতে হবে। আসিয়ান দেশগুলোর সঙ্গে একত্রে আমাদের সমস্যাগুলো সমাধানে তৎপর হতে হবে। বর্তমান প্রেক্ষাপটে চীন, ভারত, থাইল্যান্ড ও মায়ানমারের সংঘাতে ক্ষতিগ্রস্ত তাই এই দেশগুলোর সঙ্গে একত্রে করণীয় ঠিক করতে হবে। রোহিঙ্গা সংকট যেন বিশ্ব ভুলে না যায়, সে জন্য সচেতনতা ও এর অগ্রগতি নিয়মিতভাবে বৈশ্বিক পরিমণ্ডলে তুলে ধরতে হবে। মনে রাখতে হবে রোহিঙ্গা সংকটে বাংলাদেশ সবচেয়ে বেশি ক্ষতির সম্মুখীন, তাই এ সমস্যা সমাধানে সব পক্ষকে নিয়ে বাংলাদেশকেই অগ্রণী ভূমিকা পালন করতে হবে।

– ব্রিঃ জেঃ হাসান মোঃ শামসুদ্দীন (অবঃ), এনডিসি, এএফডব্লিউসি, পিএসসি, এম ফিল, মিয়ানমার ও রোহিঙ্গা বিষয়ক গবেষক (সিবিজিএ)।

প্রকাশিত খবরের কাগজ [লিংক]